onion peyaj

হিলিতে দাম কমেছে পেঁয়াজ-রসুনের, বেড়েছে আদার দাম

বাংলাদেশ অর্থনীতি

সরবরাহ বৃদ্ধি পাওয়ায় দুই দিনের ব্যবধানে দিনাজপুরের হিলিতে দেশীয় রসুন ও পেঁয়াজের দাম কেজিতে কমেছে ৪০ থেকে ২০ টাকা। এদিকে দেশীয় আদা কেজিতে বেড়েছে ৪০ টাকা। রমজান মাসে আর পেঁয়াজ রসুনের দাম বাড়বে না বলে জানান পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতারা।

বাংলাহিলি বাজারের পাইকারি ও খুচরা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পেঁয়াজ ও রসুনের দাম কমেছে কেজিতে ২০ থেকে ৪০ টাকা। দুই দিন আগে দেশীয় রসুন ১৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও আজ সেই রসুন ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশীয় পেঁয়াজ ৯০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও আজ তা ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এদিকে দেশীয় আদা ১৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও আজ কেজিতে ৪০ টাকা বেড়ে ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

হিলি বাজারে পেঁয়াজ ও রসুন কিনতে আসা মহসিন আলী বলেন, দুই দিন আগে আমি রসুন কিনেছি ১৬০ টাকা কেজি দরে, আজ (বুধবার) রসুন কিনলাম ১২০ টাকা কেজি দরে। দেশীয় পেঁয়াজ কিনেছি ৯০ টাকা কেজি দরে, আজ খুচরা কিনলাম ৭০ টাকা কেজি দরে। দুইটি পণ্যের দাম কমায় আমাদের মত খেটে খাওয়া মানুষের জন্য খুব ভালো হয়েছে। এখন একটু পেঁয়াজ রসুন কিনতে পারবো।

বাংলাহিলি বাজারের খুচরা পেঁয়াজ, রসুন ও আদা বিক্রেতা মোকারম হোসেন বলেন, গত সোমবার (১১ মার্চ) পাইকারি বাজার থেকে প্রতি কেজি দেশীয় পেঁয়াজ ৮৭ টাকা দরে কিনে খুচরা ৯০ টাকা দরে বিক্রি করছি। আজ (বুধবার) সকালে সেই পেঁয়াজ ৬৭ টাকা কেজি দরে কিনে খুচরা ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছি। দেশীয় রসুন দুই দিন আগে পাইকারি বাজারে ১৫৯ টাকা কেজি দরে কিনে খুচরা ১৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছি। সেই রসুন আজ কেজিতে ৪০ টাকা কমে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করছি। আর দুই আগেও দেশীয় আদা কেজিতে বিক্রি হয়েছে ১৪০ টাকায় আজ সেই আদা বিক্রি করছি ১৮০ টাকা কেজি দরে।