dates khejur

সরকার নির্ধারিত দামে মিলছে না খেজুর

বাংলাদেশ অর্থনীতি

খেজুরের বেঁধে দেওয়া দাম বাজারে কার্যকর করতে পারছে না সরকার। এখনও নির্ধারিত দামের চেয়ে ১০০ থেকে ১২০ টাকা বেশিতে বিক্রি হচ্ছে খেজুর। বেঁধে দেওয়া দাম আদৌ কার্যকর হবে কি না তা নিয়েও দেখা দিয়েছে সংশয়। বুধবার রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি জাইদি খেজুর বিক্রি হচ্ছে ২৫০ থেকে ৩২০ টাকায়। অতি সাধারণ ও নিম্নমানের খেজুর বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকার আশপাশে।

এর আগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় দুই ধরনের খেজুরের দাম বেঁধে দেয়। সিদ্ধান্ত অনুসারে, খুচরা বাজারে অতি সাধারণ ও নিম্নমানের খেজুরের কেজিপ্রতি দাম হবে ১৫০ থেকে ১৬৫ টাকা এবং বহুল ব্যবহৃত জাইদি খেজুরের প্রতি কেজির দাম ১৭০ থেকে ১৮০ টাকার মধ্যে থাকতে হবে।

কারওয়ান বাজারের খেজুর বিক্রেতা রফিক বলেন, রমজান শুরু হওয়ার সপ্তাহখানেক আগেই খেজুর কেনা হয়েছে। তখন খেজুরের দাম ছিল বাড়তি। এখন সরকার দাম বেঁধে দিয়েছে। কিন্তু আমার দোকানে আগের কেনা খেজুর এখনও রয়েছে। তাই দাম কমাতে পারিনি। তবে এগুলো শেষ হলে নতুন করে খেজুর আনলে তখন যদি কম দামে পাই তা হলে সরকার নির্ধারিত মূল্যে খেজুর বিক্রি করতে পারব।

গত সোমবার জারি করা খেজুরের খুচরা মূল্য নির্ধারণসংক্রান্ত স্মারকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দেশে আমদানি করা বিভিন্ন মানের খেজুরের আমদানি মূল্য, আরোপিত শুল্ক, কর ও আমদানিকারকদের অন্যান্য খরচ বিশ্লেষণ করে খেজুরের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

বাজারে খেজুরের দাম কার্যকর করার বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে তদারকির মাধ্যমে বাজারে দাম কার্যকর করা কষ্টসাধ্য ব্যাপার। তবে এ বিষয়ে আর কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) বাজারদরের আজকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ঢাকার বাজারে কেজিপ্রতি সাধারণ মানের খেজুরের দাম পড়ছে ২৮০ থেকে ৪৫০ টাকা। অন্যদিকে উন্নত মানের প্রতি কেজি খেজুর কমবেশি ১ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজার সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের তুলনায় এবার সবধরনের খেজুরের দাম কেজিতে অন্তত ১০০ থেকে ৪০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।