Dhaka University DU

ঢাবিতে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা ছাত্রলীগের

ক্যাম্পাস শিক্ষা

ঢা’বি প্রতিনিধি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের কিছু শিক্ষার্থীর আয়োজনে ‘প্রোডাক্টিভ রামাদান’ শীর্ষক এক আলোচনা অনুষ্ঠানে আয়োজকদের মসজিদ থেকে বের করে হামলা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় আইন বিভাগের পাঁচ শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন।

বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীদের বাসভবন বঙ্গবন্ধু টাওয়ারের গেটের সামনে এ হামলা করা হয়। ‘শিবির’ আখ্যা দিয়ে এ হামলা করা হয় বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। এ ঘটনায় আহতরা হলেন-সাকিব আজাদ তূর্য, শাহিনুর আলম রাসেল, রাফিদ হাসান সাফওয়ান, ফাহিম দস্তগীর, রেজোয়ান আহমেদ রিফাত। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিববাড়ি মোড়ের স্টাফ কোয়ার্টার মসজিদে রমজান বিষয়ক এ আলোচনার আয়োজন করেছিলেন আইন বিভাগের কিছু শিক্ষার্থী।

ঘটনার সিসি ক্যামেরা ফুটেজ পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, মসজিদে আলোচনার সময় বঙ্গবন্ধু টাওয়ার কল্যাণ সমিতির সভাপতি সিরাজুল হক এসে তাদেরকে চলে যেতে বলেন। একই সময় শাহবাগ থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তাওহীদুল সুজন এসে হুমকি ধমকি দিলে তারা বের হয়ে যাওয়ার সময় ভবনের মূল ফটকের সামনে থেকে প্রায় ৪৫-৫০ জন তাদের ওপর হামলা করে এবং দ্রুত বাইক নিয়ে স্থান ত্যাগ করে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী আইন বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী আবু তালহা বলেন, আমরা ১২-১৩ জন জোহরের নামাজ বঙ্গবন্ধু টাওয়ারের মসজিদেই পড়ার পর রোজার ফজিলত নিয়ে আলোচনা করছিলাম। এটা কোনো দলীয় বা রাজনৈতিক কোনো কিছু ছিল না। তখনই বঙ্গবন্ধু টাওয়ার কল্যাণ সমিতির সভাপতি সিরাজুল হক এসে আমাদেরকে বললেন এখানে আলোচনা করা যাবে না। উনার কথা শেষ না হতেই আরেকজন এসে আমাদেরকে হুমকি ধমকি দিতে থাকলে আমরা বের হয়ে যাওয়ার কথা বলি। আমরা যখন গেট দিয়ে বের হই এমন সময় প্রায় ৫০ জনের মতো বাইক নিয়ে এসে আমাদেরকে শিবির বলে মার শুরু করে। আমরা কাউকেই চিনতে পারিনি। হামলায় আমাদের পাঁচ থেকে ছয় জন গুরুতর আহত হয়েছেন। 

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু টাওয়ার কল্যাণ সমিতির সভাপতি সিরাজুল হক বলেন, তিনি শিক্ষার্থীদেরকে বের হয়ে যেতে বলেছিলেন। এ ঘটনায় অভিযোগ অস্বীকার করে শাহবাগ থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তাওহীদুল সুজন বলেন, এ ঘটনায় আমি কোনোভাবেই সম্পৃক্ত না।