Madaripur express way bus accident

ভার্সিটির সনদ আনতে গিয়ে লাশ হলেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী আফসানা

বাংলাদেশ

‘আফসানা তুই ফিরে আয়। স্যার আমি কাকে নিয়ে থাকব। আমি তো একা হয়ে গেলাম। আজ আফসানা নেই, আমি কেমনে থাকব স্যার। ওরে আল্লাহ কি করলা…’ এমন বিলাপ করতে করতে মূর্ছা যাচ্ছিলেন আফসানার বোন রূপা।  

বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স শেষ। সনদ তুলতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় লাশ হলেন আফসানা মিমি (২৪)। আফসানা গোপালগঞ্জের সদর উপজেলার মৃত আবু হেনা মোস্তফার বড় মেয়ে। ১২ বছর আগে তার বাবা মারা যায়।

আফসানা গোপালগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যাল থেকে স্নাতক (সম্মান) শেষ করে ময়মনসিংহের বাংলাদেশ কৃষি বিশ্বিবদ্যালয় থেকে মাস্টার্স শেষ করেন। সনদ তুলতে রওনা হয়েছিলেন তিনি।

রোববার (১৯ মার্চ) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে খুলনা থেকে ছেড়ে আসা ইমাদ পরিবহনের বাস মাদারীপুরের শিবচরের কুতুবপুর এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এক্সপ্রেসওয়ে থেকে নিচে পড়ে যায়। দুমড়েমুচড়ে যায় বাসটি। এ দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে কমপক্ষে ২০ জন। 

শিবচর উপজেলা প্রশাসন সুত্রে জানা যায়, নিহত ১৬ জনের লাশ সনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৪ জনের লাশ তাদের স্বজনদের বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আহতদের মধ্যে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ১২ জনকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া তিন জনকে শিবচরের ইসলামী হাসপাতালে, এক জনকে লাইফ কেয়ার হাসপাতালে, এক জনকে রয়েল হাসপাতালে এবং কয়েকজন শিবচরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হযেছে। এর মধ্যে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সাত জন ভর্তি রয়েছে।