facebook

ফেসবুকের পাসওয়ার্ড নিয়ে চাঁদা দাবি

বাংলাদেশ

মেরামত করতে দেয়া মোবাইল ফোন থেকে ফেসবুক অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড নম্বর ব্যবহার করে চাঁদা দাবি এবং ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগে তিন যুবককে আটক করেছে যশোর কোতয়ালি থানা পুলিশ। আটক তিনজনের মধ্যে একজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছে।

আসামিরা হলো, নড়াইল সদর উপজেলার চুনখোলা গ্রামের টুটুল বিশ্বাসের ছেলে সোহাগ হোসেন (২৩), যশোরের বাঘারপাড়ার খলিলপুর খাঁনপাড়ার মোবাশ্বের আল খাঁনের ছেলে কুদ্দুস আলী (২০) এবং তরফ মাহমুদপুর দিঘিরপাড় গ্রামের আবুল কালাম হাওলাদারের ছেলে সুমন হোসাইন (২৩)।

যশোর শহরের নীলগঞ্জ সাহাপাড়ার মোহাম্মদ সেলিমের মেয়ে খাদিজা সেলিম রোজা কোতয়ালি থানায় দায়ের করা এজাহারে উল্লেখ করেছেন, শহরের আরএন রোডে ‘দি মোবাইল স্টোর’ নামে দোকানে তার মোবাইল ফোনটি মেরামত করতে দেন। আসামি সোহাগ ওই দোকানের ম্যানেজার ও কুদ্দুস কর্মচারি। তারা মোবাইল ফোনের পাসওয়ার্ড চাইলে তিনি সরল বিশ্বাসে পাসওয়ার্ড দিয়ে মেরামত শেষে বাড়িতে চলে যান।

গত ২৪ আগস্ট রাত সাড়ে ৯টার দিকে তার ফেসবুকের ম্যাসেঞ্জারে আসামি সুমন এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। এবং একটি বিকাশ অ্যাকাউন্ট দিয়ে দেয়। রফিক শেখ নামে একটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট থেকে ওই চাঁদা দাবি করা হয়। চাঁদা না দিলে ফোনে থাকা গোপন তথ্য ফাঁস করে দেবে বলে হুমকি দেয়। এছাড়া আরো কুরুচিপূর্ণ কথাবার্তার ম্যাসেজ পাঠায়। পরে তিনি বিষয়টি তদন্ত করে আসামিদের তথ্য পান এবং কোতয়ালি থানায় অভিযোগ দিলে পুলিশ তা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা।

এ বিষয়ে কোতয়ালি থানার এসআই জাকির হোসেন জানিয়েছেন, মামলার পর তিনি অভিযান চালিয়ে ওই তিনজনকে আটক করে বৃহস্পতিবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠান। এর আগে আসামি সোহাগ তার দোষ স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। ওই জবানবন্দি জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুদ্দীন হোসাইন ১৬৪ ধারায় রেকর্ড করেছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।