পরিমনি - বনানী থানার ওসি - pori moni - oc banani thana- porimoni police

পরিমনিকে নিয়ে নতুন বক্তব্য দিলেন বনানী থানার ওসি

বাংলাদেশ বিনোদন

ঢাকাই ছবির নায়িকা পরিমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অথচ বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নূরে আজম মিয়া রোববার রাত ১২টা পর্যন্ত ‘জানতেনই না’ যে পরীমনি তার থানায় গিয়েছিলেন।

তবে এই নায়িকা রোববার রাতে গণমাধ্যমের সামনে এসে তার ওপর চলা নির্যাতন আর বনানী থানার অসহযোগিতার বিষয়টি সামনে আনার পর পাল্টে গেল ওসির বক্তব্য। এখন তিনি স্বীকার করছেন, পরীমনি তাদের থানায় গিয়েছিলেন।

এর আগে পরিমনি এই অভিযোগ তোলার পর থেকে বনানী থানার ওসির সঙ্গে একাধিকবার কথা বলেছে গণমাধ্যমকর্মীরা। প্রথমবার তিনি বলেন, পরীমনি থানায় এসেছিলেন কি না সেটি তিনি জানেন না। খোঁজ নিয়ে জানাবেন।

পরে রাত ১২টার দিকে আবার ফোন করা হলে তিনি নিশ্চিত করেন, পরীমনি তার থানায় যাননি। এর মধ্যে সোমবার তোলপাড় পড়ে যায়। মামলা করেন পরীমনি, গ্রেপ্তার হন প্রধান সন্দেহভাজন নাসির উদ্দিন মাহমুদসহ পাঁচজন।

nasir-uddin-mahmud-pori-moni-নাসির-উদ্দিন-মাহমুদ-নাসির-ইউ-মাহমুদ-nasir-uddin-mahmud-arrest

পুলিশ মোতায়েন হয় পরিমনির বাসায়। বাহিনীর সদর দপ্তর থেকে বলা হয়, পুলিশপ্রধান বেনজীর আহমেদ নারীর অধিকারের বিষয়টি নিয়ে খুবই সংবেদনশীল। এর মধ্যে পাল্টে গেল বনানী থানার ওসির ভাষ্যও। সোমবার দুপুরে তিনি প্রথমবারের মতো স্বীকার করেন পরীমনি অভিযোগ দিতে তার থানায় গিয়েছিলেন।

এরপর তিনি এর বিচার চেয়ে তাঁর ফেরিফায়েড ফেসবুক পেজ থেকে একটি স্টাটাস দেন।

তার এবারকার বর্ণনা এ রকম:

‘ঘটনার দিন ভোর ৪টার দিকে আমাদের থানায় এসেছিলেন পরিমনি।’

অভিযোগ গ্রহণ না করার কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ‘তখন তিনি (পরীমনি) বেসামাল ছিলেন। মানে স্বাভাবিক ছিলেন না। তখন তো কোনো তথ্য নেয়া যায় না। তাকে স্বাভাবিক করার জন্য, সুস্থ করার জন্য আমাদের একটা পুলিশ স্কোয়াড দিয়ে এভারকেয়ার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। সুস্থ স্বাভাবিক হয়ে আসলে আমরা ব্যবস্থা নেব।’

তবে সেদিনের পর পুলিশ পরীমনির সঙ্গে যোগাযোগ করে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। আর ওসি যুক্তি দাঁড় করান এভাবে:

‘উনি সুস্থ হয়ে আসেন নাই কিংবা তথ্য প্রদান করেন নাই। কোনো অভিযোগ করেন নাই। উনি যেহেতু অসুস্থ ছিলেন, আমরা হাসপাতালে নেয়ার জন্য সহযোগিতা করেছি।’

পরিমনি-pori-moni-picture-porimoni-photo

পরিমনি বলেছেন, তিনি চিকিৎসা নেয়ার সময় পুলিশকে থাকার অনুরোধ করলেও তা শোনেনি বাহিনীটি। ওসি বলেন, ‘হাসপাতাল পর্যন্ত আমরা পৌঁছে দিছি।’

একজন মানুষ থানায় গেলে থানা থেকে তাকে ন্যায়বিচারের জন্য সাহায্য করা হবে না?-এমন প্রশ্নে নূরে আজম বলেন, ‘আমাদের তো তথ্য নিয়ে কাজ করতে হবে। কোন জায়গায় কী ঘটনা ঘটছে, কী ঘটেছে, বিভিন্ন ইস্যু থাকে। আমরা তো মানবিক ও আইনগত যে বিষয়টা দেখছি। এখন অভিযোগ পাওয়া গেছে, সাভার ঘটনাস্থলে থানায় মামলা হয়েছে।’

গতকাল পর্যন্ত আপনারা বলেছিলেন পরিমনি থানায় আসে নাই, আজ বলছেন থানায় এসেছিলেন। এই দুই কথার কারণ কী?

এমন প্রশ্নে থতমত খেয়ে ওসি বলেন, ‘কারণ, উনি লিখিত বা মৌখিক কোনো অভিযোগ করেন নাই।’

আপনি তো দাবি করেছেন পরিমনি আপনার থানায় যানইনি- ওসিকে আবার প্রশ্ন করলে তিনি এবারও সরাসরি বক্তব্য না দিয়ে আগের কথাই বলেন।

ঢাকাই ছবির নায়িকা পরিমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অথচ বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নূরে আজম মিয়া রোববার রাত ১২টা পর্যন্ত ‘জানতেনই না’ যে পরীমনি তার থানায় গিয়েছিলেন।

তবে এই নায়িকা রোববার রাতে গণমাধ্যমের সামনে এসে তার ওপর চলা নির্যাতন আর বনানী থানার অসহযোগিতার বিষয়টি সামনে আনার পর পাল্টে গেল ওসির বক্তব্য। এখন তিনি স্বীকার করছেন, পরীমনি তাদের থানায় গিয়েছিলেন।

পরি-মনি-পরিমনির-নতুন-ছবি-porimoni-new-photo

এর আগে পরিমনি এই অভিযোগ তোলার পর থেকে বনানী থানার ওসির সঙ্গে একাধিকবার কথা বলেছে গণমাধ্যমকর্মীরা। প্রথমবার তিনি বলেন, পরীমনি থানায় এসেছিলেন কি না সেটি তিনি জানেন না। খোঁজ নিয়ে জানাবেন।

পরে রাত ১২টার দিকে আবার ফোন করা হলে তিনি নিশ্চিত করেন, পরীমনি তার থানায় যাননি। এর মধ্যে সোমবার তোলপাড় পড়ে যায়। মামলা করেন পরীমনি, গ্রেপ্তার হন প্রধান সন্দেহভাজন নাসির উদ্দিন মাহমুদসহ পাঁচজন।

পুলিশ মোতায়েন হয় পরিমনির বাসায়। বাহিনীর সদর দপ্তর থেকে বলা হয়, পুলিশপ্রধান বেনজীর আহমেদ নারীর অধিকারের বিষয়টি নিয়ে খুবই সংবেদনশীল। এর মধ্যে পাল্টে গেল বনানী থানার ওসির ভাষ্যও। সোমবার দুপুরে তিনি প্রথমবারের মতো স্বীকার করেন পরীমনি অভিযোগ দিতে তার থানায় গিয়েছিলেন।

তার এবারকার বর্ণনা এ রকম:

‘ঘটনার দিন ভোর ৪টার দিকে আমাদের থানায় এসেছিলেন পরিমনি।’

অভিযোগ গ্রহণ না করার কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ‘তখন তিনি (পরীমনি) বেসামাল ছিলেন। মানে স্বাভাবিক ছিলেন না। তখন তো কোনো তথ্য নেয়া যায় না। তাকে স্বাভাবিক করার জন্য, সুস্থ করার জন্য আমাদের একটা পুলিশ স্কোয়াড দিয়ে এভারকেয়ার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। সুস্থ স্বাভাবিক হয়ে আসলে আমরা ব্যবস্থা নেব।’

তবে সেদিনের পর পুলিশ পরীমনির সঙ্গে যোগাযোগ করে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। আর ওসি যুক্তি দাঁড় করান এভাবে:

‘উনি সুস্থ হয়ে আসেন নাই কিংবা তথ্য প্রদান করেন নাই। কোনো অভিযোগ করেন নাই। উনি যেহেতু অসুস্থ ছিলেন, আমরা হাসপাতালে নেয়ার জন্য সহযোগিতা করেছি।’

পরিমনি বলেছেন, তিনি চিকিৎসা নেয়ার সময় পুলিশকে থাকার অনুরোধ করলেও তা শোনেনি বাহিনীটি। ওসি বলেন, ‘হাসপাতাল পর্যন্ত আমরা পৌঁছে দিছি।’

পরীমনি-pori-moni-পরিমনি

একজন মানুষ থানায় গেলে থানা থেকে তাকে ন্যায়বিচারের জন্য সাহায্য করা হবে না?-এমন প্রশ্নে নূরে আজম বলেন, ‘আমাদের তো তথ্য নিয়ে কাজ করতে হবে। কোন জায়গায় কী ঘটনা ঘটছে, কী ঘটেছে, বিভিন্ন ইস্যু থাকে। আমরা তো মানবিক ও আইনগত যে বিষয়টা দেখছি। এখন অভিযোগ পাওয়া গেছে, সাভার ঘটনাস্থলে থানায় মামলা হয়েছে।’

গতকাল পর্যন্ত আপনারা বলেছিলেন পরিমনি থানায় আসে নাই, আজ বলছেন থানায় এসেছিলেন। এই দুই কথার কারণ কী?

এমন প্রশ্নে থতমত খেয়ে ওসি বলেন, ‘কারণ, উনি লিখিত বা মৌখিক কোনো অভিযোগ করেন নাই।’

আপনি তো দাবি করেছেন পরিমনি আপনার থানায় যানইনি- ওসিকে আবার প্রশ্ন করলে তিনি এবারও সরাসরি বক্তব্য না দিয়ে আগের কথাই বলেন।

আরও পড়ুন: নাসির উদ্দিন মাহমুদ ৩জন রক্ষিতা নিয়ে উত্তরায় লুকিয়ে ছিলেন

নাসির মাসিক টাকা দিয়ে নিজের কাছে সুন্দরী তরুণীদের রাখতেন

পরিমনি শারীরিক নির্যাতনের শিকার

পরিমনিকে যেভাবে ধর্ষণের চেষ্টা করেন শিল্পপতি নাছির ইউ মাহমুদ

পরিমনির পাশে দাঁড়ালেন অধ্যাপক আসিফ নজরুল

1 thought on “পরিমনিকে নিয়ে নতুন বক্তব্য দিলেন বনানী থানার ওসি

Comments are closed.